একজন তামিম ইকবাল 

আজিজ আজহার :::

আমি দেখিনি ৭১, দেখেছি ২০১৮। কিভাবে দেশের জন্য লড়তে হয়। এক হাত দিয়ে লড়ে গেছেন দেশের জন্য। এরাই হলো আসল বীর সৈনিক। এই বাম হাতে অপ্রকাশিত এক গল্প লুকিয়ে আছে। ক্রিকেটের পেশাদারিত্ব ছাড়িয়ে যে দৃশ্য ফুটে উঠে দায়িত্ববোধ আর ভালবাসার আত্মত্যাগের এক গল্প কাহিনী। মূহুর্তে যে গল্প ইতিহাসে রূপ নেয়। এটি কোনো নাটক বা সিনেমার গল্প নয় এটি হলো এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচ। ওই ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা। ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারে সুরঙ্গ লাকমালের বলে আঙ্গুলে চোট পেয়ে মাঠ ছেড়ে যেতে হয় হাসপাতালের বিছানা গুরে আসতে হয় এই ওপেনার তামিম ইকবালকে। বিশ্বমিডিয়া এবং কি ক্রিকেটের সবোচ্চ সংস্থা আইসিসিতেও প্রকাশ পায় এশিয়া কাপ নয় শুধু অন্তত ২মাস মাঠের বাইরে থাকতে হবে তামিম ইকবালকে। কিন্তু সে গল্প কাহিনী মিথ্যা প্রমাণ করে এক রূপ কথার জন্ম দিয়েছেন তিনি। সংগ্রামী এক বীর তামিম ইকবাল। ৪৬.৫ বলে যখন মুস্তাফিজ আউট হন, তখন মাঠ ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন মুশফিকুর রহিম ঠিক তখনই সবাইকে অভাক করে ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যান্ডেজ হাতে মাঠে প্রবেশ করলেন তামিম ইকবাল। যে সুরঙ্গ লাকমালের বলে চোট পেয়ে মাঠ চাড়তে হয়েছিলো আবার সেই। আবারও সেই বাউন্সার বল, এক হাত দিয়ে সুরঙ্গ লাকমালের বলটা খেলেছেন। অথচ হতো পারতো অনেক বড় বিপদ। কিন্তু দলের প্রয়োজনে নিজেকে নিয়ে ভাবার সময় নাই। তাইতো এক হাতে ব্যাট চালিয়ে গেছেন আহত তামিম ইকবাল। যোগ্য সঙ্গি হয়ে মুশফিককে খেলিয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। তার আগমনে দল পেয়েছে ৩২ রান। সংখ্যায় ৩২ রান কম হলেও দলের প্রয়োজনেও অনেক বেশি। দলও জয়ও পেয়েছে ১৩২ রানে। তামিম যখন মাঠে আসেন তামিম ভক্তরা, দুবাই মাঠে খেলা দেখতে আসা দর্শকরা পর্যন্ত কেঁদেছিলো। এমন দূর্লভ হৃদয় ছোয়া ঘটনার পর তামিম কিংবা তামিমের মত খেলোয়াড়রা পেয়ে যান যুগ যুগ ধরে হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা আর স্থান পান হৃদয়ের মনি কোঠায়।

অথচ সেই তামিম ইকবাল নিয়ে নানা জনে নানা কথা বলেছেন, কেউবা বলেছেন, প্রভাব খাটিয়ে, কিংবা তাঁর চাচা আকরাম খানের জন্য তামিম ইকবাল আজও দলে রয়েছেন।

আজ হয়তো আপনারা বলবেন, তামিম সেলিব্রিটি হওয়ার জন্য মাঠে প্রবেশ করেছেন। মহান রবের দরবারে দোয়া করি যেন আল্লাহ্ তায়ালা দ্রুত সুস্থতা দান করে প্রিয় খেলোয়াড় তামিম ইকবালকে। সুস্থ হয়ে যেন আবার খেলতে পারে দলে সঙ্গে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!