শিল্প-সংস্কৃতি

আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ

আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ

বাংলা সাহিত্যের অঙ্গনে যাঁরা নেতৃত্বে ছিলেন তাঁরা হলেন হরপ্রসাদ শাস্ত্রী, দীনেশ সেন, কবি নবীন চন্দ্র সেন,অক্ষয় কুমার সরকার, রামেন্দ্র সুন্দর ত্রিবেদী, ব্যোমকেশ মুস্তফী, বসন্ত রন্‌জন রায়, শরৎ চন্দ্র দাশ, সুরেশ চন্দ্র সমাজপতি, রাখালদাস রন্দোপাধ্যায় সহ আরও কয়েক বিশিষ্ট পন্ডিত ব্যক্তি। উল্লেখিত সম্মান ও উপাধীগুলি আবদুল করিমকেও সাহিত্যসেবী ও বিদ্বৎজনদের প্রথম সারিতে নিয়ে দাঁড় করায় এবং বাংলা সাহিত্যের রথী–মহারথীরা তাঁর প্রশংসায় পঞ্চমূখ হয়ে উঠেন। সৈয়দ এমদাদ আলী, কবি জীবেন্দ্র কুমার দত্ত, শশাং্‌ক মোহন সেন, এয়াকুর আলী চৌধুরী, ডঃ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, ডঃ মুহাম্মদ এনামুল হক, ও মোহাম্মদ নাসিন উদ্দিন প্রমুখ অনেকেই তাঁর বিশেষ গুণমুগ্ধ ছিলেন। আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ বাঙ্গালীর ঐতিহ্যচর্চার এক নিরলস সাধক। তাঁর অনুসন্ধিৎসা ও আগ্রহ ছিল বহুমুখী ও বৈচিত্র্যমন্ডিত। স্বচ্ছ ও গভীর ছিলো তাঁর দৃষ্টি। এই জ্ঞানত
ঈদে শেখ মহসিনের নতুন মিউজিক ভিডিও

ঈদে শেখ মহসিনের নতুন মিউজিক ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদক ::: আসছে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সম্প্রতি নির্মিত হয়েছে ‘ময়না’-খ্যাত সঙ্গীতশিল্পী শেখ মহসিনের অন্যতম শ্রোতাপ্রিয় গান ‘আমারে ছাড়িয়া’র মিউজিক ভিডিও। দেশের প্রথমসারির অডিও-ভিডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি সিরিজ-অগ্নিবীণার ব্যানারে প্রকাশ পেতে যাচ্ছে ভিডিওটি। শুভব্রত সরকারের পরিচালনায় এতে শেখ মহসিনের সঙ্গে মডেল হয়েছেন কলকাতার জনপ্রিয় মডেল-অভিনেত্রী পৌষালী দাসগুপ্ত। ভিডিওটির চিত্রায়ন করা হয়েছে নারায়নগঞ্জের বিভিন্ন মনোরম লোকেশনে। গেল ঈদে প্রকাশ পাওয়া মহসিনের চতুর্থ একক অ্যালবাম ‘জলের আয়না’-তে থাকা এ গানটি লিখেছেন এন আই বুলবুল এবং সুর করেছেন শেখ মহসিন। গানটির সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন সচি শামস। গায়ক শেখ মহসিন বলেন, ‘গানের কথার সঙ্গে সমন্বয় করে ভিডিওটি নির্মিত হয়েছে। এতে সুন্দর একটি গল্প রয়েছে। আশাকরি ভিডিওটি দর্শকদের ভালো লাগবে।’ এর আগে শেখ মহসিনের ‘ময়না’ গানের মিউজিক ভিডিওটি দর
গোপন প্রেমে মুখর কবি কাজী নজরুল

গোপন প্রেমে মুখর কবি কাজী নজরুল

অজয় দাশগুপ্ত:: নজরুলকে নিয়ে লেখা আমার জন্যে বেদনার। এক শ্রেণির বাঙালি জীবদ্দশায় তাঁর মূল্যায়ন হয়নি বলে যত রাগ দেখান না কেন মূলত : এরাই তাঁকে ক্রমাগত বিস্মরণের আড়ালে নিয়ে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের মানুষ আমরা যত বেশি আবেগপ্রবণ তত বেশি হুজুগে। একটা সময় ছিলো যখন কাজী নজরুলকে সাম্প্রদায়িকতার আড়ালে নিজেদের রক্ষা করার ব্যর্থ চেষ্টা চলতো। সে চেষ্টা এখন আর হালে পানি পায়না। কারণ সবাই জেনে গেছে তিনি আমাদের অবিচ্ছেদ্য এক জীবন অনুভূতি। ব্যস। তারপর থেকে তিনি ক্রমাগত আড়ালে যাচ্ছেন। এখন দেশে রবীন্দ্র বিরোধিতা যত বেশি ঠিক ততটাই তাঁর চর্চা হয়। না হলেও কাছাকাছি। কিন্তু নজরুল কোথায়? ভালো করে তাকিয়ে দেখুন, বুকে হাত দিয়ে বলুনতো শেষ কবে আপনি তাঁর একটা কবিতা পুরো পড়েছেন? কবে দেখেছেন তাঁর নাটক? পদ্মাগোখড়া নামের যে গল্পটি তার অতিপ্রাকৃত রস আস্বাদন ব্যতীত মানুষের পেটে মানে জোহরার পেটে সাপের বাচ্চার অলৌকিক আনন্দে বিভোর
একজন নাট্যজন প্রদীপ দেওয়ানজী

একজন নাট্যজন প্রদীপ দেওয়ানজী

আবীর চক্রবর্তী সদ্যপ্রসূত বাংলাদেশে যে ক’জন মানুষ সাংস্কৃতিক জাগরণের অভ্যুত্থান ঘটিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম প্রদীপ দেওয়ানজী। একজন নাট্যজন, সাংবাদিক হিসেবেই শুধু তাঁর পরিচয় সীমাবদ্ধ নয়; বহুমাত্রিক প্রতিভায় তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়। সৃষ্টিশীল কাজে বিশ্বাসী প্রদীপ কান্তি দেওয়ানজীর জন্ম ১৯৫৪ সালের ৫ নভেম্বর। মীরসরাইয়ের মিঠানালা ইউনিয়নের মলিয়াইশ গ্রামের প্রয়াত মনীন্দ্র মোহন দেওয়ানজী ও সুধারাণী দেওয়ানজীর ৪ সন্তানের মধ্যে তিনি ২য়। স্ত্রী শিক্ষিকা বন্দনা চৌধুরী ও একমাত্র সন্তান আভাস চিরন্তন দেওয়ানজীকে নিয়েই তাঁর সংসার। স্কুলজীবন থেকেই সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়েছিলেন প্রদীপ দেওয়ানজী। ১৯৬৪ সালে চট্টগ্রামের প্রবর্ত্তক বিদ্যাপীঠে ৪র্থ শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘রামের সুমতি’ অবলম্বনে নাটকে তিনি প্রথম অভিনয় করেন। ৮ম শ্রেণিতে আবারো ‘নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা’ না
‘স্বাধীনতা এই শব্দটি  কীভাবে আমাদের হল’

‘স্বাধীনতা এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হল’

সাইফুল ইসলাম নাঈম/আজিজ আজহার::: ‘স্বাধীনতা এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হল’ কবি নির্মলেন্দু গুনের কালজয়ী এ কবিতার শিরোনাম থেকে নেয়া এ শব্দমালা সেদিন দোলা দিয়েছিল কচিকাঁচা শিশু শিক্ষার্থীদের কোমল প্রাণে। তারা স্বাধীনতা শব্দটির সঙ্গে একাকার হয়ে মিলেছিল শুভসংঘের স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপনের দিনে। গত (সোমবার) ২৬ মার্চ সকাল থেকে রাত অবধি মীরসরাইয়ের ফেনী নদীর তীরে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের স্কুল ‘এম.এ হায়দার প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কালের কন্ঠ শুভসংঘের ব্যানারে সকলে সমবেত হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ, গণহত্যা, নির্যাতন আর স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে জানাতে। সেদিন বাঙালীর স্বাধীকার আন্দোলনের শুধুমাত্র জাতীয় প্রেক্ষাপট নয়, পুরো আয়োজনজুড়ে ছিল মীরসরাই তথা চট্টগ্রামে সংঘটিত মুক্তিযুদ্ধকালীন ঐতিহাসিক পটভূমির আলোকে সাধারণ জ্ঞান প্রশ্নপর্ব, মুক্তিযুদ্ধের ছবি আঁকা, কবিতা আবৃত্তি, দেশের গান ও নাছের প্রতিযোগিতা। এছাড়া সুবিধাবঞ
error: Content is protected !!