নির্বাচিত কলাম

টিউবওয়েলে আর্সেনিক বিষ ঝুঁকিতে এক লাখ পরিবার

টিউবওয়েলে আর্সেনিক বিষ ঝুঁকিতে এক লাখ পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক::: মিরসরাই উপজেলার এক লাখ পরিবার চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখোমুখি দাঁড়িয়ে। এখানকার ভূগর্ভের পানিতে মাত্রারিক্ত আর্সেনিক থাকায় এ ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। অথচ সরকারের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান এমন ভয়াবহতা থেকে মানুষকে রক্ষা করতে কোন ধরণের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না। উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের তথ্য মতে, ১৪ বছর আগে অর্থাৎ ২০০২-২০০৩ সালের নাগাদ এখানকার গ্রামে গ্রামে নলকূপগুলোর পানিতে আর্সেনিকের মাত্রা নীরূপণ করা হয় এবং একই সময় আর্সেনিকযুক্ত পানি পানের কারণে আর্সেনিকোসিস রোগে আক্রান্ত ৪০জন রোগি শনাক্ত করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে বর্তমানে উপজেলার ৫০ভাগ নলকূপে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক রয়েছে। জানা গেছে, ২০০৩ সালের পর থেকে এখানকার নলকূপগুলোর পানি পরীক্ষা এবং আর্সেনিক রোগে আক্রান্ত রোগি শনাক্তের কোন পদক্ষেপ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলে গত এক যুগের বেশি সময় ধরে আর্সেনিকোসিস রোগে আক্রান্ত
ফরিদা হোসেন আমাদের গর্ব

ফরিদা হোসেন আমাদের গর্ব

এনায়েত হোসেন মিঠু ::: বহুমুখী প্রতিভায় উদ্ভাসিত ফরিদা হোসেন। বাংলা সাহিত্যের একটি খ্যাতিমান নাম। ২০০৪ সালে তিনি সাহিত্যে একুশে পদক লাভ করেন। এছাড়া গুণি এ লেখক এ যাবত কালে ৬টি স্বর্ণপদকসহ মোট ২৫টি সাহিত্য পুরুস্কার লাভ করেন। চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজেলার শাহেরখালী ইউনিয়নের সভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের মেয়ে ফরিদা হোসেন জন্মগ্রহণ করেন কলকাতায়। এ লেখক বর্তমানে বসবাস করেন ঢাকার গুলশানে। ফরিদা হোসেন একাধারে গল্পকার,উপন্যাসিক, শিশু সাহিত্যিক, নাট্যকার, গীতিকার, সুরকার আবৃওিকার ও সমাজ নিমার্নের একজন নিমোর্হ ব্যাক্তিত্ব। সাহিত্যের সকল শাখায় সরব বিচরণ করলেও মূলত: তিনি একজন কথাশিল্পী, জীবনবোধর রুপকার। ষাটের দশকের শুরুতেই ফরিদা হোসেনের লেখালেখির জগতে প্রবেশ করেন। ষাটের দশকের জীবনের উদ্দামতার কঠিন সময়ে তিনি মানব মনের নারী ও পুরুষের প্রেমানুভ’তির রুপ নিমার্নে বেশ কটি অসামান গল্প সে সময় উপহার দিয়েছেন পাঠ
নির্বাচন ভীতি ও নির্বাচন প্রীতি

নির্বাচন ভীতি ও নির্বাচন প্রীতি

অজয় দাশগুপ্ত এখন নির্বাচন মানেই প্রশ্ন। আগে নির্বাচন ছিলো যুগপৎ আনন্দ ও ভয়ের উৎস। সত্তরের নির্বাচনের কিছু স্মৃতি এখনো মনে আছে। সে কি উৎসাহ আর উদ্দীপনা। মায়েরা সবাই সকাল থেকে তৈরি। বাবারা ভাইয়েরা রাতে ঘুমাতে পারেননি। বাংলাদেশের ভিত্তি তৈরি করার সেই নির্বাচনের পর আজ অবদি এমন কোন নির্বাচন হয়নি যাকে এর সাথে তূলনা করা চলে। বঙ্গবন্ধুর আমলে যে নির্বাচন কেবল সেটি ই ছিলো সর্বজনস্বীকৃত। এরপর সামরিক শাসনে হাঁ না ভোটে জিয়াউর রহমান এর বারোটা বাজানোর চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে এরশাদ আমলে পরিণত হয় প্রহসনে। বিএনপি আমলে জোর জবরদস্তির নির্বাচন এখন তার জৌলুস হারিয়ে নির্জীব আর একতরফা। বাস্তবে কেউ আর এর পরোয়া করেননা। এতে দেশের লাভ লোকসান নিয়েও মানুষের আর মাথা ব্যথা আছে বলে মনে হয়না। বলে রাখি পুরো দুনিয়ায় এখন নির্বাচন বিষয়টা বদলে গেছে। উন্নত ও সভ্য নামে পরিচিত সমাজে এটি কেবল সরকার পরিবর্তনের হাতিয়ার। আমি যে-দেশে
খালেদা জিয়ার ‘দেশনেত্রী’ উপাধির লেখক নুরুল আমিন

খালেদা জিয়ার ‘দেশনেত্রী’ উপাধির লেখক নুরুল আমিন

এনায়েত হোসেন মিঠু::: জনতার স্রোতের মাঝে কিছু কিছু মানুষ বিচরণ করে বিশিষ্টজনে পরিণত হন। পান সম্মান খ্যাতি। মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে নিবেদিত করেন আপন মহিমায়। সহ্য করেন নির্যাতন নীপিড়ন আর জুলুম। নুরুল আমিন তাদের একজন। যিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এবং বিএনপি’র রাজনীতির সঙ্গে আপোষহীনভাবে যুক্ত রয়েছেন সুুদীর্ঘকাল। শুধু তাই নয়, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল জিয়াউর রহমানের সহধর্মিনী দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ‘দেশনেত্রী’ উপাধি রচনা কালের জীবন্ত স্বাক্ষি হয়ে রয়েছেন তিনি। তাঁর রাজনৈতিক সহযোদ্ধাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ১৯৮৬ সালে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় চট্টগ্রামের লালদিঘী ময়দানের মহাসমাবেশে যোগ দেন খালেদা জিয়া। ওই সমাবেশে খালেদা জিয়াকে ‘দেশনেত্রী’ উপাধি দেয়া হয়। তথ্য অনুযায়ী ওই সময় সাবেক স্পিকার মির্জা গোলাম হাবিব ও আব্দুল্লাহ আল নোমান ‘দেশনেত্রী’ উপাধির
যে দুর্ঘটনা প্রতিদিন ঘটে,সেটি নিছক দুর্ঘটনা নয়;নির্মম হত্যাকান্ড,খুন

যে দুর্ঘটনা প্রতিদিন ঘটে,সেটি নিছক দুর্ঘটনা নয়;নির্মম হত্যাকান্ড,খুন

মঈনুল হোসেন টিপু:: আমি কখনোই মহাসড়কে ছোট গাড়িতে উঠি না।আমার ভীষণ বিরক্ত লাগে।প্রচুর সময় যায়,এখানে সেখানে থামে।আর মহাসড়কে বড় বড় ট্রাক,লরি আর বাসের কাছে ছোট গাড়িগুলো একেবারেই নস্যি। গত রোজার ঈদে কোন গাড়ি না পাওয়াতে অনিচ্ছা সত্ত্বেও সেইফ লাইন গাড়িতে উঠেছিলাম।কালু শাহ ব্রীজের ওখানটায় গাড়ির চাকা ব্লাস্ট হয়,গাড়ি গিয়ে ব্রিজের রেলিংয়ে আচড়ে পড়ে।আল্লাহর রহমতে ঐ যাত্রায় রক্ষা পেয়েছিলাম। এরকম ঘটনা এই রোডের ছোট গাড়িতে প্রতিনিয়ত ঘটে।দুদিন আগে দেখলাম সীতাকুন্ডের এক স্কুল ছাত্রী সেইফ লাইন দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। আজ এরকম একটি লেগুনা গাড়ি এক্সিডেন্টে মারা গেলেন এই অঞ্চলের জনপ্রিয় শিক্ষক,অভিভাবক,প্রফেসর কামাল উদ্দীন চৌধুরী কলেজের অধ্যক্ষ আমিন স্যার।স্যারের এমন অকালে চলে যাওয়া অনেক বড় ক্ষতি। কিন্তু এমন ঘটনাতো এই মহাসড়কে প্রতিদিনই ঘটছে।প্রতিদিন খবরের কাগজে একটা খবর নিয়মতই থাকে,মীরসরাইয়ে সড়ক দুর্ঘট
ডিসেম্বরে শুরু হবে মিরসরাই গার্মেন্টস পার্কের কাজ

ডিসেম্বরে শুরু হবে মিরসরাই গার্মেন্টস পার্কের কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: দেশের পোশাকখাতকে আরও এগিয়ে নিতে গার্মেন্টস পার্ক প্রতিষ্ঠায় চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ৫০০ একর জমির বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। চলতি বছরের ডিসেম্বরেই পার্কটির অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। বুধবার দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এবং বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফেকচারস এন্ড এক্সপোর্ট এ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) এর মধ্যে মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে গার্মেন্টস পার্ক প্রতিষ্ঠায় ৫০০ একর জমির লিজ গ্রহণে এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানের হাতে এই স্মারক তুলে দেন বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী। এসময় জমির মূল্য হিসেবে বিজিএমই`র পক্ষ থেকে ২৫ কোটি টাকার চেক দেওয়া হয় বেজাকে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, চলতি বছরে
error: Content is protected !!