মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন : মীরসরাই পরিক্রমা

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়ন : মীরসরাই পরিক্রমা

গোলাম রহমান চৌধুরী, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মিরসরাই :::

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণ বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকার কর্তৃক গৃহীত অন্যতম চ্যালেঞ্জ। ঝউএ, ২০৪১ সালের রূপকল্প বাস্তবায়নে মান সম্মত শিক্ষা বাস্তবায়ন এবং শিক্ষা সহায়তা একটি উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম।

বিদ্যালয়ে শিশু বান্ধব শিখন পরিবেশ :
মীরসরাই উপজেলা ১৪/০৭/২০১৪ ইং তারিখে উপজেলা শিক্ষা অফিসার হিসাবে যোগদান করার পর থেকে বিদ্যালয়ের শিশুবান্ধব শিখন পরিবেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন লালন করছিলাম এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিকক্ষ ডেকোরেশন করার জন্য নির্দেশনা ও ঝখওচ এর বরাদ্দ পাওয়ায় কাজটি খুবই সহজ হয়ে গেল। এই বিষয়ে শিক্ষকবৃন্দেকে যথাযথ নির্দেশনা প্রদান এবং মোটিভেটেড করে মীরসরাইয়ের সার্বিক শিখন পরিবেশ নিশ্চিত করা হয়েছে এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক নিয়মিত তদারকি, পরিদর্শন এবং নির্দেশনা মোতাবেক বিষয়টি চলমান রয়েছে। এতে শিশুরা আনন্দচিত্তে বিদ্যালয়ে অবস্থান করতে পারছে এবং ঝরে পড়া রোধ করা যাচ্ছে।

ঝরেপড়া রোধ :
বিদ্যালয়ে যথাযথ শিশুবান্ধব শিখন পরিবেশ, শাস্তিমুক্ত শিক্ষাদান ব্যবস্থা, উপবৃত্তি, হোমভিজিট, মা/অভিভাবক সমাবেশে অভিভাবকদেরকে সচেতন করার মাধ্যমে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী উপস্থিতির হার বৃদ্ধি এবং ঝরে পড়ার হার কমিয়ে আনার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এতে করে আশানুরূপ ফলাফল দৃশ্যমান।
সাল উপস্থিতির হার ঝরে পড়ার হার
২০১৭ ৯৪% ২.৫%
২০১৮ ৯৭% ২.১%
২০১৯ ৯৭% ১.৯%

উপবৃত্তি বিতরণ :
বর্তমান শিক্ষাবান্ধব এবং জনবান্ধব সরকারের একটি উল্লেখযোগ্য সিদ্ধন্ত হলো শতভাগ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি প্রদান। মান সম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নের প্রথম শর্ত হলো বিদ্যালয়ে শিশুদের আনন্দচিত্ত উপস্থিতি। সেক্ষেত্রে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে অর্থনৈতিক সাপোর্ট প্রদান একটি ইতিবাচক সিদ্ধান্ত। পূর্বে ২০% – ৪০% দরিদ্র শিশুকে ফলাফল এবং ৮৫% উপস্থিতির শর্তে উপবৃত্তি প্রদান করা হত এবং ৫-৭ টি বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি প্রাপ্ত অভিভাবকদেরকে একটি কেন্দ্রে উপস্থিত করে ম্যানুয়ালি উপবৃত্তি বিতরণ করা হত। এতে অনেকক্ষেত্রে অভিভাবকদের হয়রানির শিকার হতে হতো। জনবান্ধব বর্তমান সরকার উপবৃত্তি প্রদানকে বৈষম্যহীন সহজসাধ্য করার জন্য রূপালী ব্যাংক শিউর ক্যাশের মাধ্যমে শতভাগ শিশুকে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এবং নিয়মিত উপস্থিতির শর্ত সাপেক্ষে উপবৃত্তি তাদের অভিভাবকদের মোবাইলে প্রেরণ করা হচ্ছে। ফলে শিশুর উপস্থিতি হার বৃদ্ধির সাথে সাথে ঝরে পড়ার হারও কমে এসেছে।

পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে মূলধারায় সম্পৃক্তকরণ :
মীরসরাই প্রাকৃতিক বৈচিত্র্যময় একটি উপজেলায় সাগর উপকূল যেমন আছে পাহাড় ঘেরা শ্যামলিমাও রয়েছে। এই মীরসরাই এ পাহাড়ী অঞ্চলে বাসকরে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী। উপজেলার একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে উদ্ধুদ্ধ করে তাদের জন্য ত্রিপুরা বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। ঐ বিদ্যালয়ে আমি নিজে ভিজিট করে শিশুদের সাথে এবং তাদের অভিভাবকদের সাথে মত বিনিময় করেছি। তাদের স্কুল যেহেতু বনবিভাগের জায়গায় অবস্থিত তাই তাদেরকে মূল ভ‚-খন্ডের মাদার স্কুলের সাথে সম্পৃক্ত করার প্রক্রিয়া করা হচ্ছে। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য তাদের নিজস্ব ভাষায় লিখিত বইও সরবরাহ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের জন্য তাদের উপযোগী করে র‌্যাম্প রাখা হয়েছে। হুইল চেয়ার, চশমা, হিয়ারিং ডিভাইস বিতরণ করা হয়েছে। রিড়িং, রাইটিং স্কিল ও ওয়ান ডে ওয়ান ওয়ার্ড কার্যক্রম চলমান।

কর্মসূচী :
২০২০ সালে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সুযোগ্য সচিব কর্তৃক গৃহীত ইনোভেটিভ আইডিয়া হিসাবে শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিদিন ১টি করে ওয়ার্ড শেখানোর ধারাবাহিক প্রক্রিয়া হতে নেয়া হয়েছে। প্রতিটি শিশু যাতে রিডিং ও রাইটিং এ স্কিলড্ হয় তার জন্য সু-স্পষ্ট নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এই বিষয়ে আমি নিজে এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার বৃন্দ বিদ্যালয় সমূহে ভিজিট করে নোট প্রদান করে থাকি। এই বিষয়ে প্রতিটি বিদ্যালয়ে একটি করে রেজিষ্টার সংরক্ষণ করা হয় এবং প্রতিমাসে উপজেলায় তথ্য প্রেরণ করার জন্য বিদ্যালয় সমূহকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ সহকারে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

দক্ষ শিক্ষক তৈরীর জন্য প্রশিক্ষণ :
দক্ষ শিক্ষক তথা মানুষ গড়ায় দক্ষ কারিগর তৈরীতে প্রশিক্ষকের বিকল্প নেই। সরকার চঊউচ-৩ প্রকল্পের আওতায় সারদেশের প্রাথমিক শিক্ষাকদেরকে ঘববফ ইধংব ঝঁন ঈষঁংঃবৎ, ঝঁনলবপঃ ইধংব ঞৎধরহরহম, খবধফবৎ ঞৎধরহরহম, ঞংহ ঞৎধরহরহম, ইধংরপ রহ ঝবৎারপব ঞৎধরহরহম, ওঈঞ ওহ ঊফঁপধঃরড়হ সহ টজঈ এবং চঞও সমূহের এবং ঘধঢ়ব এ সারা বছর ধরে বিভিন্ন মেয়াদে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন। দেশীয় বিশ^ বিদ্যালয়ে এবং বৈদেশিক বিশ^বিদ্যালয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন। এতে করে শিক্ষকরা তাদের যোগ্যতাকে শানিত করে আরো বেশি যোগ্যতর হয়ে ওঠার পর্যাপ্ত সুযোগ পায়। ইতিমধ্যে মীরসরাই উপজেলা থেকে দুইজন প্রধান শিক্ষক ইজঅঈ বিশ^বিদ্যালয়ে উচ্চতর গ.ঊফ করার সুযোগ লাভ করেছেন।

শিক্ষক প্রনোদনা :
শিক্ষক এবং শিক্ষা অধিকার এবং সংশ্লিষ্ট এস.এম.সি. সভাপতিকে মান সম্মত প্রাথমিক শিক্ষ বাস্তবায়ণে প্রনোদনা মূলক কার্যক্রম হিসাবে প্রতিবৎসর উপজেলা থেকে জাতীয় পর্যায় পর্যন্ত শ্রেষ্ঠ উপজেলা শিক্ষা অফিসার, শ্রেষ্ঠ সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত করা হয় এবং নির্বাচিত জনকে বিভিন্নভাবে উৎসাহিত করা হয়। বিদেশে প্রশিক্ষণ এবং ভ্রমনের ব্যবস্থা করা হয়। আপনারা জেনে খুশি হবেন যে, অত্র মীরসরাই উপজেলা হতে একজন প্রধান শিক্ষক ইতোমধ্যে ২০১২ সালে জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়ে ব্যাংকক এ ভ্রমনসহ প্রশিক্ষণের সুযোগ লাভ করেছেন। এমনিভাবে বর্তমানে জনবান্ধব এবং শিক্ষা বান্ধব সরকারের গৃহীত যাবতীয় ইতিবাচক কার্যক্রম ইতোমধ্যে মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে সুফল বয়ে আনছে। একজন উপজেলা শিক্ষা অফিসার হিসাবে আমি অত্র মীরসরাই উপজেলায় উক্ত কার্যক্রম সমূহ সফলভাবে বাস্তবায়নে সদা তৎপর রয়েছি এবং সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যহত রাখব ইন্শাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!