মহামায়া লেক: পাহাড়, লেক ও ঝরনার দারুণ প্যাকেজ

মহামায়া লেক: পাহাড়, লেক ও ঝরনার দারুণ প্যাকেজ

নিজস্ব প্রতিবেদক :::

ছোট-বড় পাহাড়ের মাঝখানে লেক। সেখানে একটি ঝরনাও রয়েছে। এ যেন লেক, পাহাড় ও ঝরনার দারুণ এক প্যাকেজ! বলছিলাম মহামায়া লেকের কথা! চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের এই লেক যেন এক মায়াজাল, একবার যিনি আসবেন বারবার আসতে চাইবেন সেখানে। নৈসর্গিক সৌন্দর্যের এক অপূর্ব লীলাভূমি পুরো এলাকাটি। চমৎকার এই লেকটি ১১ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে আছে। আমাদের ফেলে আসা তপ্ত দুপুরের শেষভাগে এই লেকটি হয়ে উঠেছিল চোখ এবং মনে প্রশান্তির বাহক।

ভ্যাপসা গরমেও এই লেকের পানি বেশ টলমলে ও শীতল। পুরো লেক জুড়েই ছড়িয়ে আছে অসংখ্য ছোট-বড় পাহাড়, পাহাড়ি গুহা এবং ঝরনা। এখানে কায়াকিং করার দারুণ ব্যবস্থা রয়েছে। প্যাডেল নৌকাতেও নিজেদের মতো করে ঘুরতে পারবেন। পাশাপাশি ছোট, বড় নানা আকৃতির নৌকাতেও ঘুরতে পারবেন লেকে।

জলের কাছাকাছি এসে এই লেকের সৌন্দর্য ভালোভাবেই টের পাওয়া যায়। এই লেকটির নাম ‘মহামায়া’ হওয়ার স্বার্থকতা এখানেই। আমরা প্রচণ্ড মায়ায় সত্যিই হারিয়ে যাচ্ছিলাম। পাহাড়ের পাশঘেঁষে বয়ে চলা নৌকায় বসে পুরো সৌন্দর্যে একেবারে ডুবে যাচ্ছিলাম। সকাল থেকে বহু পথ হেঁটে ট্রেকিং করে আসার ক্লান্তি নিমেষে মিইয়ে দেয়ার অদ্ভুত ক্ষমতা আছে এই প্রকৃতির, তা খুব করে টের পেলাম। সবুজে মোড়ানো পাহাড়, অদ্ভুতভাবে আকৃষ্ট করা পাহাড়ি গুহাগুলো, লেকের টলটলে জলে মেশা আকাশের নীল আর সাদায় অদ্ভুত এক ঘোর জাগানো সৌন্দর্যের মিশেল তৈরি হয়েছিল যেন!

স্বচ্ছ জল থৈ থৈ চারদিকে। ফাঁকে ফাঁকে সবুজ পাহাড়ের ভাঁজ। এরমধ্যে নৌকায় আধা ঘণ্টা চলার পর আমাদের নামিয়ে দেয়া হলো একটি পাহাড়ে। জানলাম এখান থেকে হেঁটে একটু সামনে গেলেই ছোট্ট একটি ঝরনা রয়েছে। আমাদের মতো আরো কিছু নৌকা এসে ভিড়লো এই একই স্থানে। একটু হেঁটে যেতেই ছোট্ট ঝিরিপথ, এরপর দূরের ছোট্ট ঝরনাটি। এখন ছোট মনে হলেও প্রচণ্ড বৃষ্টির সময় এর জলের ধারা খুব বেড়ে যায়, মাঝি বললো সে কথা।

Mohamaya Irrigation Dam Bridge

এখানে ওখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা আরো অসংখ্য নৌকাকে তোয়াক্কা না করে আমাদের নৌকাটি ফেরার পথ ধরলো। নিজেরা প্রকৃতির মাঝে হারিয়ে গেলেও সময়ের তাড়াটা ঠিক টের পাচ্ছিল মাঝি ছেলেটি। সে বললো, আরেকবার আসলে কায়াকিং করতে। সেখানকার লোকরাই শিখিয়ে দেয় কিভাবে কায়াকিং করতে হয়। যার কারণে চালাতে তেমন বেগ পেতে হয় না। বিষয়টাতে দারুণ অ্যাডভেঞ্চার রয়েছে।

নৌকায় ঘোরা শেষে আমরা লেকের পাড়ে বসে বিকেলটিকে হারিয়ে যেতে দেখলাম। একে অন্যের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা শেয়ার করলাম। লেকের পাড়ের শীতল বাতাসে সন্ধ্যার গন্ধ ছড়াতেই সবাই উঠে পড়লাম। মিরসরাই থেকে সীতাকুণ্ডের হোটেলে ফেরার পথ ধরলাম। অনেকটুকু প্রাকৃতিক প্রশান্তি ভেতরে নিয়ে আমাদের ফেরার পালা দেয়াল ভর্তি শহরে।

যাওয়া

মহামায়া চট্টগ্রাম শহর থেকে ৪৫ কিলোমিটার উত্তরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাইয়ের ঠাকুরদীঘি বাজার থেকে দেড় কিলোমিটর পূর্বে পাহাড়ের পাদদেশে এ স্পটের অবস্থান। নীল আকাশের বিশালতার নিচে সবুজের সমারোহ। মনে হয় পুরো প্রকল্পটি এক অপরূপ দৃশ্য। এ প্রকল্পটি চট্টগ্রামের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র। রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে যে কোনো বাসে উঠে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাইয়ের ঠাকুরদীঘি বাজারে নামতে হবে। নেমে সেখান থেকে সিএনজিযোগে প্রকল্প এলাকায় যেতে সময় লাগবে বড়জোর ২০ মিনিট। অটোরিকশায় ভাড়া পড়বে একশ’ টাকা। এছাড়া লোকাল চলাচলরত হিউম্যান হলারে চড়ে যেতে পারেনে। ভাড়া পড়বে ১০ টাকা।

 খাওয়া :

মিরসরাই পৌর সদরের পার্ক ইন রেস্টুরেন্ট, বারইয়ারহাট গ্রীণ পার্ক, কাশবনে দুপুরের খাওশা শেষ করতে পারেন। থাকার তেমন সুযোগ নাই মিরসরাইতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!