আশরাফুল ভিক্ষুক না নষ্ট সুশীল সমাজ

আশরাফুল ভিক্ষুক না নষ্ট সুশীল সমাজ

আশরাফুলের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহ এর চানপুর এলাকায় ওর ভাষ্যমতে। থাকে বারইয়ারহাট আল-আমিন হোটেল এর পেছনে শাহ আলম হাজ্বীর ভাড়া বাসায়। বয়স ৭ কিংবা ৮ বছর। সকালে ঘুম থেকে উঠেই প্লাস্টিক বোতল এসব খুঁজতেই বেড়িয়ে পরে।বাবলুর ভাঙ্গারি দোকানে সাদা বোতল প্রতি কেজি ২০ টাকা, টাইগারের বোতল ১০ টাকা, লিচুর বোতল ৫০ টাকা দরে বিক্রি করে আশরাফুল। এসব আগে নিজের ঘরে জমিয়ে তারপর বিক্রির কাজ করে। মা কাজ করে ডেকোরেশনেনে বিয়ে কিংবা কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে। ছোট একটা ভাই আছে নাম সোহাগ।বয়স ৩ বছর। বেশ সাবলীল ভাষায় আমার প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাচ্ছিলো। ও আচ্ছা আশরাফুলের বাবা নেই। বছর তিনেক আগে স্ট্রোক করে মারা গেছেন তিনি। মূলত বাবার সূত্রে আশরাফুলদের মিরসরাইয়ে যাত্রা। বাবা বারইয়ারহাট পৌরসভায় কাজ করতো। সেই সুবাদে এখানে ভাড়া নিয়ে থাকতেন। কিন্তু বাবা এখন তাদের মাঝে নেই। জীবন সংগ্রামের স্থান মিরসরাইকে বেছে নিলেন তারা। ঈদে জামা নিয়েছে কিনা প্রশ্নে আশরাফুল জানায় মামুন নামে একজন ভাই তাকে ঈদে জামা কিনে দিয়েছে, আর ছোট ভাইকে ঈদের জামা কিনে দিয়েছে আশরাফুলের বোতল বিক্রির টাকায়। তারমধ্যে কোনো কষ্ট বা হতাশার ছাপ দেখতে পাইনি। বড় হয়ে কি হতে চাও আশরাফুল? উত্তরে বলে কাজ কাম করতে চাই, মারে সুখ দিতে চাই, ছোট ভাইটাকে পড়াতে চাই।

এই আশরাফুলদের আসলে ধনী হওয়ার স্বপ্ন কেউ দেখায় না, ধনী হওয়ার স্বপ্ন ওরা দেখেই না কখনো। ওরা চায় মায়েদের নিজে একটু খেয়ে পরে বেচে থাকতে। কিন্তু আমরা সমাজের বিবেকবান সুশীল সমাজ মঞ্চে দাঁড়িয়ে লেকচারটাই দিতে পারি। আশরাফুল কিন্তু ভিক্ষা করে না। আশরাফুল ভিক্ষুক না। তবে আমরা ওর কাছে চরমভাবে দায়বদ্ধ। আশরাফুল এর মতো ছোট কেউ আপনার কাছে টাকা চেয়ে বসে, ঝাড়ি দিয়ে দূরে সরিয়ে রাখেন, মাইকে আপনি শিশুশ্রম নিয়ে বুলি আওড়ান। কিন্তু আপনার সেক্টরেই আশরাফুলরা কাজ করে পরিবার চালায়। তাদের দায়িত্ব তাদেরই নিতে হয়। শিশুশ্রম বন্ধ হবে কবে?

লেখক :: সাদমান সময়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!